বৃহস্পতিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আমাদের ওয়েবসাইটে স্বাগতম (পরীক্ষামুলক স¤প্রচার)

স্কটল্যান্ডে করোনা ভাইরাস (বিস্তারিত)

স্কটিশ পার্লামেন্টে এমএসপি নির্বাচিত হলেন প্রথম বাংলাদেশী ফয়ছল চৌধুরী এমবিই




বাংলা স্কট নিউজ, এডিনবরা (০৮ ই মে ২০২১) :

এবারের স্কটিশ পার্লামেন্টে প্রথমবারের মত এমএসপি (মেম্বার অব স্কটিশ পার্লামেন্ট) নির্বাচিত হলেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত ফয়ছল হোসেন চৌধুরী এমবিই। স্কটীশ লেবার পার্টি থেকে লোদিয়ান এলাকার এমএসপি হিসাবে নির্বাচিত হলেন তিনি।

গত ৬ই মে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হয় ৬ষ্ট স্কটিশ পার্লামেন্ট নির্বাচন। কোভিড নীতিমালার কারণে এবারের ভোট গণনা শুরু হয় পরদিন শুক্রবার সকাল ৯ টায়। শনিবার রাতে গণনা সম্পন্ন হলে, রাত ৮.৩০ মিনিটে লোদিয়ান রিজিওনের ফলাফল ঘোষনা দেন রিটানিং অফিসার। এ ঘোষণায় স্কটিশ বাংলাদেশী কমিউনিটিতে চলছে আনন্দের জোয়ার। কোভিড নীতিমালার কারণে স্কটল্যান্ডে বর্তমানে কোন ধরনের গণ জমায়েত সম্পুর্ণ নিষিদ্ধ। বাংলাদেশী কমিউনিটির অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের উচ্ছাস ও আবেগ প্রকাশ করে যাচ্ছেন।

স্কটিশ পার্লামেন্টে মোট আসন রয়েছে ১২৯। এতে সংখ্যাগরিষ্ট আসন লাভ করেছে এসএনপি। নিকোলা স্টার্জন এই ফলাফলকে ঐতিহাসিক সংখ্যাগরিষ্ট বলে উল্লেখ করেছেন।
– স্কটিশ পার্লামেন্ট নির্বাচন ২০২১: সামগ্রিক ফলাফল
– স্কটিশ ন্যাশন্যাল পার্টি (এসএনপি) – ৬৪
– স্কটিশ কনজার্ভেটিভ পার্টি ( টোরি) – ৩১
– স্কটিশ লেবার পার্টি – ২২
– স্কটিশ গ্রীন পার্টি – ৮
– স্কটিশ লিবারেল ডেমোক্রেট পার্টি – ৪

এবারের নির্বাচনের কিছু উল্লেখযোগ্য দিক:

এবারের নির্বাচনে প্রথমবারের মত এথনিক মাইনরিটির একজন নারী এমএসপি হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন। সাউথ এশিয়ান বংশোদ্ভুত কাউকাব স্টুয়ার্ট গ্লাসগো কেলভিন আসন থেকে এসএনপি র প্রার্থী হিসাবে বিজয়ী হন।

সাবেক স্কটিশ ফার্স্ট মিনিষ্টার অ্যালেক্স স্যামন প্রতিষ্টিত আলবা পার্টি কোন আসন পায়নি।

নির্বাচনের পুর্বে স্কটীশ পার্লামেন্ট থেকে এবছর প্রায় ৪০ জন এমএসপি অবসর গ্রহন করায় এবারের পার্লামেন্টে আসছেন অনেক নতুন মুখ।

২০০০ সালে চালু হওয়া এই পার্লামেন্টে মুলত: স্কটীশ জণগনের স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও ট্রান্সপোর্ট সংক্রান্ত বিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তাছাড়া কয়েক প্রকার পাবলিক বেনিফিট এবং ট্যাক্স সংক্রান্ত নীতিমালা প্রণয়ন করার ক্ষমতা রয়েছে স্কটিশ পার্লামেন্টের।

প্রতি চার বছর পর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ১২৯ জন এমএসপি (মেম্বার অব স্কটিশ পার্লামেন্ট) নির্বাচিত হন। বিভিন্ন কারণে এ বছরের নির্বাচনটি অনেকের কাছেই তাৎপর্যপুন ছিল। বিশেষ করে বাংলাদেশী কমিউনিটির কাছে এবারের নির্বাচনটি বিশেষ ভাবে স্মরণীয় হয়ে থাকবে কেননা এবারই প্রথম কোন বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত প্রার্থী স্কটিশ পার্লামেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করে বিজয়ী হলেন।

 

স্কটিশ লেবার পার্টি থেকে লোদিয়ান রিজিওন্যাল লিষ্ট প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন পেয়েছেন এডিনবরার ফয়ছল চৌধুরী এমবিই। ইকুয়ালিটি এন্ড হিউম্যান রাইট এক্টিভিস্ট ফয়ছল চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে লেবার পার্টির রাজনীতির সাথে যুক্ত রয়েছেন। ইতিপুর্বে লেবার পার্টি থেকে ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত ওয়েষ্ট মিনিষ্টার পার্লামেন্ট নির্বাচনে এডিনবরা সাউথওয়েষ্ট আসনে লড়াই করেন ফয়ছল চৌধুরী। এছাড়া ২০১৪ সালে স্কটিশ রেফারেন্ডাম চলাকালীন ‘বাংলাদেশীজ ফর বেটার টোগেদার ক্যাম্পেইন‘ এর সমন্বয়কারী ছিলেন তিনি। ঐতিহাসিক গনভোট এবং অন্যান্য মূলধারায় রাজনৈতিক কর্মকান্ডে স্থানীয় বাংলাদেশী কমিউনিটিকে যুক্ত করতে রয়েছে তাঁর উল্লেখযোগ্য ভুমিকা।

ফয়ছল হোসেন চৌধুরীর জন্ম হবিগঞ্জ জেলার নবিগঞ্জ থানার বদরদি গ্রামে। বাবার নাম আলহাজ¦ গোলাম রব্বানী চৌধুরী। মা-বাবার সাথে তরুন বয়সে পাড়ি জমান ইংল্যান্ডে। প্রথমে ম্যানঞ্চেষ্টার এবং পরে এডিনবরায় বসবাস শুরু করেন। বাবা শারিরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়লে বড় ছেলে হিসাবে সেই তরুন বয়সেই পরিবারের হাল ধরেন ফয়ছল চৌধুরী। তখন থেকেই যুক্ত রয়েছেন পারিবারিক কেটারিং ব্যাবসায়।

ব্যাবসার পাশাপাশি পরিবারিক ঐতিহ্য অনুযায়ী তরুণ বয়সেই শুরু করেন স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম। মামা ড. ওয়ালী তসর উদ্দিন এমবিই -র আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে তাঁর কাছেই কমিউনিটি ওয়ার্কের হাতেখড়ি হয় ফয়ছল চৌধুরীর।

দীর্ঘদিন যাবত এডিনবরা এন্ড লোদিয়ান রিজিওন্যাল ইকুয়ালিটি কাউন্সিল (এলরেক) এর চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। বিভিন্ সংখ্যালঘু কমিউনিটির মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য ভুমিকা রাখার জন্য ২০০৪ সালে ব্রিটেনের রাণী কতৃক ‘এমবিই‘ খেতাবে ভুষিত হন তিনি।

সম্প্রতি করোনা মহামারী চলাকালে, ২০২০ সালের জুন মাসে এডিনবরায় বসবাসরত অভাবগ্রস্থ এথনিক মাইনরিটি পরিবারগুলির মধ্যে খাদ্যদ্রব্য বিতরনের লক্ষ্যে তিনি চালু করেন ফুড সাপোর্ট প্রজেক্ট। ফয়ছল চৌধুরীর নেতৃত্বে এলরেক এর উদ্যোগে এই প্রকল্পের আওতায় প্রতি সপ্তাহে ৩০টির ও বেশী অসহায় পরিবারকে জরুরী খাবার পৌছে দেয়া হয়। প্রকল্পটি বর্তমানে চালু রয়েছে।

ফয়ছল চৌধুরী বর্তমানে স্কটিশ মুলধারায় নানাবিধ কর্মকান্ডে সক্রিয় ভাবে যুক্ত রয়েছেন যেমন- ক্লাইমেট ইমার্জেন্সী স্কটল্যান্ড এর চেয়ার, এডিনবরা স্লেভারী এন্ড কলোনিয়াল লেগাসী রিভিউ গ্রুপ এর কার্যকরী পর্ষদের সদস্য, মিউজিয়াম এন্ড গ্যালারীস স্কটল্যান্ড – এর বোর্ড মেম্বার, ইএসএমএস এর ইকুয়ালিটি এন্ড ডাইভার্সিটি টাস্ক ফোর্সের এডাভাইসার এবং ড্রামন্ড হাই স্কুল প্যারেন্ট কাউন্সিলের সদস্য হিসাবে তিনি দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

স্কটল্যান্ডের বৃহত্তম মাল্টিকালচারাল আয়োজন ’এডিনবরা মেলা’-র প্রতিষ্টাকালীন ও বর্তমান ডাইরেক্টর ফয়ছল চৌধুরী – গিল্ড অব বাংলাদেশী রেষ্টুরেণ্টার ইন স্কটল্যান্ড-র প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশ সমিতি এডিনবরার চেয়ারম্যান, কাউন্সিল অব বাংলাদেশীজ ইন স্কটল্যান্ড (সিবিএস) এর সাধারন সম্পাদক এবং যুক্তরাজ্য নবিগঞ্জ এডুকেশন ট্রাস্ট-র ট্রাস্টি মেম্বার হিসাবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ১৯৯১ সালে বাংলাদেশ সাইক্লোন আপিল এবং ২০০৮ সালে বাংলাদেশ সাইক্লোন সিডর আপিলে তিনি অসামান্য ভুমিকা
লকডাউন নীতিমালা অনুসরন করে লোদিয়ানব্যাপী ব্যাপকভাবে নির্বাচন প্রচারণা চালিয়ে গেছেন ফয়ছল চৌধুরী। এমএসপি হিসাবে নির্বাচিত হওয়ায় প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করতে গিয়ে বলেন – “স্কটীশ পার্লামেন্ট নির্বাচনে বাঙালী কমিউনিটির অংশগ্রহন খুবই তাৎপর্যপুর্ন । ভোটারদের কাাছ থেকে অভুতপুর্ব সাড়া মিলছে। এবারের বিজয়ে আমি আনন্দিত, ভোটারদের কাছে আমি কৃতজ্ঞ এবং আল্লাহর দরবারে আমি শোকরিয়া জ্ঞাপন করছি । বাংলাদেশী হিসাবে আমি গর্বিত”

ফয়ছল চৌধুরী আরও বলেন- “স্কটল্যান্ডে বসবাসরত বাংলাদেশীদের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি যে, আপনারা বেশী বেশী করে মূলধারার রাজনৈতিক কর্মকান্ডের সাথে যুক্ত হোন এবং এর মাধ্যামে আপনাদের দাবী দাওয়া সরকারের নিকট তুলে ধরুন’’

সম্পাদক: মিজান রহমান
প্রকাশক: বিএসএন মিডিয়া, এডিনবরা, স্কটল্যাণ্ড থেকে প্রচারিত

সার্চ/খুঁজুন: