মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আমাদের ওয়েবসাইটে স্বাগতম (পরীক্ষামুলক স¤প্রচার)

ফুড হাইজিন নীতিমালা ভঙ্গের দায়ে হাইল্যান্ডে বাংলাদেশী রেষ্টুরেন্টের জরিমানা




বাংলা স্কট রিপোট (১৮ জুলাই ২০১৯):
ফুড হাইজিন সংক্রান্ত অপরাধে নায়ার্নের আল-রাজ রেষ্টুরেন্টের মালিককে দোষী সাব্যাস্ত করেছে আদালত। গত ৯ই জুলাই ইনভারনেস শেরিফ কোর্ট ফুড হাইজিন সংক্রান্ত অপরাধের দায়ে প্রতিষ্টানটির মালিক মি: মোবারক আলীকে ৪৮০০ পাউন্ড জরিমানা করেছে।

মি: আলীর বিরুদ্ধে ফুড হাইজিন (স্কটল্যান্ড) রেগুলেশন ২০০৬ এর আওতায় ৩ টি অভিযোগ উত্থাপন করা হয় এবং আদালতের কাছে তিনি তার দোষ স্বীকার করেন।
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২১ সেপ্টেম্বর নায়ার্নের হারবার স্ট্রিটে অবস্থিত আল-রাজ রেষ্টুরেন্টে বিভিন্ন সংস্থা মিলে যৌথ ভাবে একটি অপারেশন পরিচালনা করে। এতে যেসব সংস্থা যুক্ত ছিল – এনভায়রনমেন্টাল হেলথ, এইচএমআরসি, ইমিগ্রেশন এনফোর্সমেন্ট টিম এবং পুলিশ স্কটল্যান্ড।

অপারেশন পরিচালনা কালে রেষ্টুরেন্টের কিচেনে ফুড হাইজিন নীতিমালা ভঙ্গের যেসব প্রমান মিলে সেগুলি হচ্ছে; নোংরা যন্ত্রপাতি, ওয়ার্ক সারফেস অপর্যাপ্ত পরিষ্কার, ঝুকিপুর্ন পদ্ধতিতে খাদ্য প্রস্তুত এবং স্টোরেজ। এর ফলে এনভায়রনমেন্টাল হেলথ কতৃক উক্ত প্রতিষ্টানে খাদ্য প্রস্তুুত করা বন্ধ করে দেয়া হয়।

এ ব্যাপার হাইল্যান্ড কাউন্সিলের এনভায়রনমেন্টাল হেলথ টিমের প্রধান কর্মকর্তা এন্ডি সামার বলেন, ‘‘এই প্রতিষ্টানে ফুড হাইজিন সংক্রান্ত বেসিক নীতিমালা সুস্পষ্টভাবে লংঘন করা হয়েছে যার ফলে রেষ্টুরেন্টের কাস্টমার ফুড পয়জনিং এর ঝুকিতে ছিলেন।”
‘‘ফুড বিজনেস পরিচালনাকারীদের জন্য আইনগত বাধ্যবাধকতা হচ্ছে তারা এমনভাবে খাবার তৈরী ও সরবরাহ করবেন যা সাধারন মানুষের জন্য নিরাপদ এবং সকল ফুড বিজনেস যাতে সঠিকভাবে ফুড হাইজিন সংক্রান্ত নীতিমালা মেনে চলে তা নিশ্চিত করতে হাইল্যান্ড কাউন্সিল অঙ্গিকারবদ্ধ ”

‘‘কাউন্সিল জনগনের নিরাপত্তা এবং ফুড হাইজিন সংক্রান্ত বিষয়গুলি অত্যান্ত গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে। আমাদের অফিসারগন এসব ব্যাপারে ব্যাবসার মালিকদের সাথে কাজ করতে আগ্রহী এবং প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিতে প্রস্তুত। কিন্তুু যখন কোন প্রতিষ্টানে ফুড হাইজিন স্ট্যান্ডার্ড গ্রহনযোগ্য পর্যায়ে থাকবে না তখন আমরা আইনগত ব্যাবস্থা নিতে আমরা মোটেও পিছপা হব না’’

ওদিকে স্থানীয় প্রেস এন্ড জার্নাল পত্রিকায় প্রকাশিত রিপোর্টে জানা যায়, রেষ্টুরেণ্টটিতে বর্তমানে ফুড হাইজিন সংক্রান্ত সকল নীতিমালা সঠিক পরিচালিত হচ্ছে। পত্রিকাকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে রেষ্টুরেন্টের সত্বাধিকারী মি: মোবারক আলী এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এছাড়া তিনি আর ও জানান, যখন রেষ্টুরেন্টে অপারেশন পরিচালনা করা হয় তখন তিনি তার অসুস্থ শ^শুরকে দেখতে বাংলাদেশে চলে যান। সে সময় রেষ্টুরেন্টে স্টাফ সংকট চলছিল। এর ফলে ‘‘স্বল্প সময়ের জন্য’’ মানসম্মত ফুড হাইজিন অনুপস্থিত থাকতে পারে।

মি: আলী বলেন, ‘‘এই ঘঠনার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা ৪ সপ্তাহ রেষ্টুরেন্ট বন্ধ রেখে হেলথ ইন্সপেক্টরদের সহায়তায় যাবতীয় কাজ এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন অভিযান সম্পন্ন করেছি। আমি এই শহরে ৩৬ বছর ধরে ব্যাবসা পরিচালনা করে আসছি, আমরা আমাদের সকল সম্মানিত কাষ্টমারদের আস্থা অর্জন করতে ও সক্ষম হয়েছি ’’

ফুড হাইজিন সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্যের জন্য হাইল্যান্ড কাউন্সিলের ফুড হাইজিন টিমের সাথে নীচের ঠিকানায় যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে ফোন: ০১৩৪৯ ৮৮৬৬০৬ , ইমেইল: env.health@highland.gov.uk

সুত্র: হাইল্যান্ড কাউন্সিল কতৃক প্রচারিত প্রেস রিলিজটি পড়তে এখানে ক্লিক করুন

সম্পাদক: মিজান রহমান
প্রকাশক: বিএসএন মিডিয়া, এডিনবরা, স্কটল্যাণ্ড থেকে প্রচারিত

সার্চ/খুঁজুন: